ঢাকা ০১:০৮ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ঝালকাঠিতে ৩ দিনব্যাপি ঘোড়ার দৌড় প্রতিযোগিতা ও মেলা অনুষ্ঠিত

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ১০:২৩:৪২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • ৫ বার পড়া হয়েছে

এইচ এম নাসির উদ্দিন ঝালকাঠি প্রতিনিধিঃ

ঝালকাঠির রাজাপুরে গ্রামীণ বাংলার ঐতিহ্য ধরে রাখতে প্রতি বছরের ন্যায় এবছরও ঘোড়দৌড় প্রতিযোগিতা ও মেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলার মঠবাড়ি ইউনিয়নের পুখরিজানা গ্রামে স্থানীয় মিলবাড়ি সততা-একতা ক্লাবের উদ্যোগে এ ঘোড়দৌড় প্রতিযোগিতার ও গ্রামীন মেলার আয়োজন করা হয়।

বৃহস্পতিবার বিকেলে ৩ দিনের এ প্রতিযোগীতা শেষে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান অধিকারী ঘোড়ার মালিকদেরকে পুরস্কৃত বিতরণ করা হয়।

এ অনুষ্ঠানে মঠবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহ জালাল হাওলাদারের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগের আহবায়ক নাসির উদ্দিন মৃধা। বিশেষ অতিথি ছিলেন রাজাপুর থানার এসআই আল হেলাল সিকদার, রাজাপুর সাংবাদিক ক্লাবের সভাপতি রহিম রেজা ও সমাজসেবক লিটন খান। মেলা পরিচালনায় ছিলেন উপজেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি ইদ্রিস মৃধা ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক তরিকুল ইসলাম সুমন প্রমুখ। এ প্রতিযোগীতায় কাঠালিয়া, ভান্ডারিয়া, রাজাপুর, বেতাগীসহ বিভিন্ন এলাকার ৮ টি ঘোড়া অংশ নেয়। এতে নানা শ্রেণিপেশা ও বয়সের হাজার হাজার নারী-পুরুষ মাঠের দুই পাশে দাঁড়িয়ে ঐতিহ্যবাহী এই ঘোড়দৌড় প্রতিযোগিতা উপভোগ করেন। ঘোড়দৌড় দেখতে আসা দর্শকরা জানান, ঘোড়ার দৌড় প্রতিযোগিতা দেখে তারা খুবই মুগ্ধ। এ প্রতিযোগিতা দেখে হারিয়ে যাওয়া ঐতিহ্যকে মনে পড়ে যায় তাদের। এমন আয়োজন প্রতি বছর হলে দেখতে চান বলেও জানান তারা।

ঘোড়দৌড় ও মেলায় বিভিন্ন দোকানীরা খেলনা ও খাবারসহ নানা ধরনের পসরা সাজিয়ে দোকান নিয়ে বসেছেন। গ্রামীণ এ মেলা বসে চলে রাত পর্যন্ত। এ প্রতিযোগিতার আয়োজক ইন্দ্রিস হোসেন জানান, প্রতি বছরের মতো এ বছরও মেলা ও ঘোড়ার দৌড় প্রতিযোগীতার আয়োজন করা হয়েছে। মূলত গ্রামীন ঐতিহ্য ধরে রাখতে ও বিনোদনের উদ্দেশ্যেই এ আয়োজন করা হয়। মঠবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহ জালাল হাওলাদার জানান, ৩ দিনের এ আয়োজন শেষে প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়া বিজয়ী ঘোড়ার সাওয়ারদের পুরস্কৃত করা হবে। গ্রামীন ঐতিহ্য ধরে রাখতে ও মাদক মুক্ত সামজ গড়ে তুলতে এ আয়োজন করা হয়।

এইচ এম নাসির উদ্দিন
ঝালকাঠি প্রতিনিধি।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

দাঁড়ি বড় রাখায় যুবককে পেটালেন ইউপি চেয়ারম্যান ও তার ছেলে!

ঝালকাঠিতে ৩ দিনব্যাপি ঘোড়ার দৌড় প্রতিযোগিতা ও মেলা অনুষ্ঠিত

আপডেট সময় ১০:২৩:৪২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

এইচ এম নাসির উদ্দিন ঝালকাঠি প্রতিনিধিঃ

ঝালকাঠির রাজাপুরে গ্রামীণ বাংলার ঐতিহ্য ধরে রাখতে প্রতি বছরের ন্যায় এবছরও ঘোড়দৌড় প্রতিযোগিতা ও মেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলার মঠবাড়ি ইউনিয়নের পুখরিজানা গ্রামে স্থানীয় মিলবাড়ি সততা-একতা ক্লাবের উদ্যোগে এ ঘোড়দৌড় প্রতিযোগিতার ও গ্রামীন মেলার আয়োজন করা হয়।

বৃহস্পতিবার বিকেলে ৩ দিনের এ প্রতিযোগীতা শেষে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান অধিকারী ঘোড়ার মালিকদেরকে পুরস্কৃত বিতরণ করা হয়।

এ অনুষ্ঠানে মঠবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহ জালাল হাওলাদারের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগের আহবায়ক নাসির উদ্দিন মৃধা। বিশেষ অতিথি ছিলেন রাজাপুর থানার এসআই আল হেলাল সিকদার, রাজাপুর সাংবাদিক ক্লাবের সভাপতি রহিম রেজা ও সমাজসেবক লিটন খান। মেলা পরিচালনায় ছিলেন উপজেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি ইদ্রিস মৃধা ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক তরিকুল ইসলাম সুমন প্রমুখ। এ প্রতিযোগীতায় কাঠালিয়া, ভান্ডারিয়া, রাজাপুর, বেতাগীসহ বিভিন্ন এলাকার ৮ টি ঘোড়া অংশ নেয়। এতে নানা শ্রেণিপেশা ও বয়সের হাজার হাজার নারী-পুরুষ মাঠের দুই পাশে দাঁড়িয়ে ঐতিহ্যবাহী এই ঘোড়দৌড় প্রতিযোগিতা উপভোগ করেন। ঘোড়দৌড় দেখতে আসা দর্শকরা জানান, ঘোড়ার দৌড় প্রতিযোগিতা দেখে তারা খুবই মুগ্ধ। এ প্রতিযোগিতা দেখে হারিয়ে যাওয়া ঐতিহ্যকে মনে পড়ে যায় তাদের। এমন আয়োজন প্রতি বছর হলে দেখতে চান বলেও জানান তারা।

ঘোড়দৌড় ও মেলায় বিভিন্ন দোকানীরা খেলনা ও খাবারসহ নানা ধরনের পসরা সাজিয়ে দোকান নিয়ে বসেছেন। গ্রামীণ এ মেলা বসে চলে রাত পর্যন্ত। এ প্রতিযোগিতার আয়োজক ইন্দ্রিস হোসেন জানান, প্রতি বছরের মতো এ বছরও মেলা ও ঘোড়ার দৌড় প্রতিযোগীতার আয়োজন করা হয়েছে। মূলত গ্রামীন ঐতিহ্য ধরে রাখতে ও বিনোদনের উদ্দেশ্যেই এ আয়োজন করা হয়। মঠবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহ জালাল হাওলাদার জানান, ৩ দিনের এ আয়োজন শেষে প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়া বিজয়ী ঘোড়ার সাওয়ারদের পুরস্কৃত করা হবে। গ্রামীন ঐতিহ্য ধরে রাখতে ও মাদক মুক্ত সামজ গড়ে তুলতে এ আয়োজন করা হয়।

এইচ এম নাসির উদ্দিন
ঝালকাঠি প্রতিনিধি।