ঢাকা ১১:১৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ০২ অক্টোবর ২০২৩, ১৭ আশ্বিন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
গতমাসে কাতার থেকে দেশে রেমিটেন্স এসেছে ১১ কোটি ৩৮ লাখ টাকা

গতমাসে কাতার থেকে দেশে রেমিটেন্স এসেছে ১১ কোটি ৩৮ লাখ টাকা

কাতার থেকে গত সেপ্টেম্বর মাসে মাত্র মাত্র ১১ কোটি ৩৮ লাখ টাকা রেমিট্যান্স পাঠিয়েছে প্রবাসীরা, যা অন্যান্য সময়ের তুলনায় অনেক কম।

দেশে ডলার সংকট সমাধানে ব্যাংকগুলোতে ডলারের দর বেঁধে দেওয়া হয়েছে। এতে করেই বৈধ পথে অর্থ পাঠাতে উৎসাহ হারাচ্ছেন অনেক প্রবাসীরা।

ফলে গত সেপ্টেম্বর মাসে রেমিট্যান্স ব্যাপকহারে কমে গেছে, যা ছিলো গত সাত মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন।

এদিকে বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ প্রকাশিত হালনাগাদ প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, সেপ্টেম্বরে রেমিট্যান্স ব্যাপকহারে কমে গেছে, যা ছিলো তার আগের সাত মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন। তবে সেপ্টেম্বর মাসে সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স পাঠিয়েছে সৌদি আরবের প্রবাসীরা। সৌদি আরব থেকে প্রায় ৩০ কোটি ৭৬ লাখ টাকা এসেছে বাংলাদেশে।

কারণ হিসেবে প্রবাসীদের কাছে জানতে চাইলে তারা বলছেন, কদিন আগেও যখন সরকার ডলারের দাম বেঁধে দেয় নাই তখন কাতারের ব্যাংকগুলোতে বা মানি এক্সচেঞ্জ গুলোতে টাকার রেট অনেক ভালো ছিলো। এখন বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ডলারের দর নির্ধারণ করে দেওয়াতে রিয়ালের দাম কমেছে বাংলাদেশের টাকায়। আর সে কারনেই বৈধভাবে রেমিটেন্স পাঠাতে নিরুৎসাহিত হচ্ছে অনেক প্রবাসীরা।

উল্লেখ্য, সর্বশেষ পাওয়া তথ্যমতে গত কয়েক মাসেউ কাতারের রিয়াল বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ৩১ টাকার বেশি পাওয়া যেতো যা বর্তমানে কমে ২৯ টাকার মতো হয়েছে।

রাজবাড়ী-ঢাকা রুটে বাস চলাচল বন্ধ

গতমাসে কাতার থেকে দেশে রেমিটেন্স এসেছে ১১ কোটি ৩৮ লাখ টাকা

গতমাসে কাতার থেকে দেশে রেমিটেন্স এসেছে ১১ কোটি ৩৮ লাখ টাকা

আপডেট সময় ০৮:০৭:৫৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর ২০২২

কাতার থেকে গত সেপ্টেম্বর মাসে মাত্র মাত্র ১১ কোটি ৩৮ লাখ টাকা রেমিট্যান্স পাঠিয়েছে প্রবাসীরা, যা অন্যান্য সময়ের তুলনায় অনেক কম।

দেশে ডলার সংকট সমাধানে ব্যাংকগুলোতে ডলারের দর বেঁধে দেওয়া হয়েছে। এতে করেই বৈধ পথে অর্থ পাঠাতে উৎসাহ হারাচ্ছেন অনেক প্রবাসীরা।

ফলে গত সেপ্টেম্বর মাসে রেমিট্যান্স ব্যাপকহারে কমে গেছে, যা ছিলো গত সাত মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন।

এদিকে বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ প্রকাশিত হালনাগাদ প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, সেপ্টেম্বরে রেমিট্যান্স ব্যাপকহারে কমে গেছে, যা ছিলো তার আগের সাত মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন। তবে সেপ্টেম্বর মাসে সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স পাঠিয়েছে সৌদি আরবের প্রবাসীরা। সৌদি আরব থেকে প্রায় ৩০ কোটি ৭৬ লাখ টাকা এসেছে বাংলাদেশে।

কারণ হিসেবে প্রবাসীদের কাছে জানতে চাইলে তারা বলছেন, কদিন আগেও যখন সরকার ডলারের দাম বেঁধে দেয় নাই তখন কাতারের ব্যাংকগুলোতে বা মানি এক্সচেঞ্জ গুলোতে টাকার রেট অনেক ভালো ছিলো। এখন বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ডলারের দর নির্ধারণ করে দেওয়াতে রিয়ালের দাম কমেছে বাংলাদেশের টাকায়। আর সে কারনেই বৈধভাবে রেমিটেন্স পাঠাতে নিরুৎসাহিত হচ্ছে অনেক প্রবাসীরা।

উল্লেখ্য, সর্বশেষ পাওয়া তথ্যমতে গত কয়েক মাসেউ কাতারের রিয়াল বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ৩১ টাকার বেশি পাওয়া যেতো যা বর্তমানে কমে ২৯ টাকার মতো হয়েছে।