ঢাকা ০৮:০৪ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঝালকাঠি হত্যার বিচার দাবিতে লাশ নিয়ে বিক্ষোভ

ঝালকাঠিতে হত্যার বিচারের দাবিতে লাশ নিয়ে বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ করেছে স্বজনরা। বুধবার দুপুরে ঝালকাঠি জেলা প্রশাসন কার্যালয়, ঝালকাঠি থানা ও প্রেস ক্লাবের সামনে লাশ নিয়ে বিক্ষেভ করা হয়। এসময় অভিযোগ করা হয় ঝালকাঠি শহরের কলাবাগান এলাকার দিন মজুর খোকন বিশ্বাসের স্ত্রী তাসলিমা বেগম (৩৫) জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত হয়ে চার মাস চিকিৎসাধীন থাকার পরে বরিশাল সদর হাসপাতালে বুধবার সকালে মারা যান ।

খোকন বিশ্বাসের অভিযোগ, এবছরের ১৫এপ্রিল জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিবেশি মো. সাইফুল, মো. এলিন ভূইয়া, নুর জামাল ভূইয়া, শামীম ভূইয়া, শহিদুল ইসলাম ও মো. বাদশা মিলে তাসলিমা বেগমকে উলঙ্গ করে বেধরক পেটায়, দা দিয়ে কপালে কোপ দেয়। এতে শরীরের বিভিন্ন স্থানে গুরুতর জখম হন তাসলিমা বেগম। এ ঘটনায় খোকন বিশ্বাস বাদি হয়ে হামলাকারিদের অসামী করে ঝালকাঠির আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন।

চার মাস বিভিন্ন সময় হাসপাতাল ও বাসায় চিকিৎসা নেন তাসলিমা বেগম । মঙ্গলবার গুরুতর অসুস্থ হয়ে পরলে প্রথম তাকে ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে অবস্থার অবনতি হলে বরিশাল সদর হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধিন অবস্থায় বুধবার সকাল ৯ টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

খোকন বিশ্বাস বলেন , আসামীরা প্রভাবশালী হওয়া পুলিশ তাদের গ্রেফতার করেনি। আমার স্ত্রী আজ চিকিৎসাধী অবস্থায় মারা গেছে। আমি আমার স্ত্রী হত্যার বিচার চাই।

রাজবাড়ীর পাংশায় প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থা কতৃক আয়োজিত ঈদ পূর্ণমিলন

ঝালকাঠি হত্যার বিচার দাবিতে লাশ নিয়ে বিক্ষোভ

আপডেট সময় ০৭:৪৩:০০ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২

ঝালকাঠিতে হত্যার বিচারের দাবিতে লাশ নিয়ে বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ করেছে স্বজনরা। বুধবার দুপুরে ঝালকাঠি জেলা প্রশাসন কার্যালয়, ঝালকাঠি থানা ও প্রেস ক্লাবের সামনে লাশ নিয়ে বিক্ষেভ করা হয়। এসময় অভিযোগ করা হয় ঝালকাঠি শহরের কলাবাগান এলাকার দিন মজুর খোকন বিশ্বাসের স্ত্রী তাসলিমা বেগম (৩৫) জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত হয়ে চার মাস চিকিৎসাধীন থাকার পরে বরিশাল সদর হাসপাতালে বুধবার সকালে মারা যান ।

খোকন বিশ্বাসের অভিযোগ, এবছরের ১৫এপ্রিল জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিবেশি মো. সাইফুল, মো. এলিন ভূইয়া, নুর জামাল ভূইয়া, শামীম ভূইয়া, শহিদুল ইসলাম ও মো. বাদশা মিলে তাসলিমা বেগমকে উলঙ্গ করে বেধরক পেটায়, দা দিয়ে কপালে কোপ দেয়। এতে শরীরের বিভিন্ন স্থানে গুরুতর জখম হন তাসলিমা বেগম। এ ঘটনায় খোকন বিশ্বাস বাদি হয়ে হামলাকারিদের অসামী করে ঝালকাঠির আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন।

চার মাস বিভিন্ন সময় হাসপাতাল ও বাসায় চিকিৎসা নেন তাসলিমা বেগম । মঙ্গলবার গুরুতর অসুস্থ হয়ে পরলে প্রথম তাকে ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে অবস্থার অবনতি হলে বরিশাল সদর হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধিন অবস্থায় বুধবার সকাল ৯ টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

খোকন বিশ্বাস বলেন , আসামীরা প্রভাবশালী হওয়া পুলিশ তাদের গ্রেফতার করেনি। আমার স্ত্রী আজ চিকিৎসাধী অবস্থায় মারা গেছে। আমি আমার স্ত্রী হত্যার বিচার চাই।