ঢাকা ০১:৪৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ২১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীতে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ১১:৪১:২৭ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৮ জুন ২০২৩
  • ৬৮ বার পড়া হয়েছে

মুফতি ফয়জুল করীমের ওপর হামলার প্রতিবাদে শুক্রবার বিকাল ৩ টায় রাজবাড়ী শহরের পৌর ইংলিশ মার্কেট ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর জেলা কার্যালয় থেকে শুরু করে বিক্ষোভ মিছিলটি শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে জেলা প্রেস ক্লাবের সামনে সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়।

বিক্ষোভ সমাবেশে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ রাজবাড়ী জেলা শাখার সভাপতি মুফতি শামসুল হুদা,জেলা সিনিয়র সহ-সভাপতি মুস্তাফিজুর রহমান,জেলা প্রশিক্ষণ সম্পাদক মাওলানা আব্দুল কাইয়ুম কাসেমী,জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক হাফেজ সাব্বির হুসাইন,যুব আন্দোলনের জেলা সভাপতি মুহাম্মাদ রফিকুল ইসলাম মিলন, শ্রমিক আন্দোলন জেলা সভাপতি মুস্তাফিজুর রহমান সেলিম প্রমুখ, ছাত্র আন্দোলনের ছাত্র নেতা মুহাম্মাদ আব্দুর রহিম সুমন বক্তব্য দেন।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, শায়খে চরমোনাই ওপর হামলাকারীদের অবিলম্বে গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আওতায় আনতে হবে। বর্তমান নির্বাচন কমিশন সরকারের রিমোট কন্ট্রোলের সহযোগিতায় চলে। সুতরাং এই নির্বাচন কমিশন কখনো সুষ্ঠ নিরপেক্ষ নির্বাচন দিতে পারবে না।তার প্রমাণ হয়েছে বরিশাল সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে। সুতরাং এই ব্যর্থ অথর্ব নির্বাচন কমিশন কে অনতিবিলম্বে পদত্যাগ করতে হবে। বরিশাল সিটি নির্বাচনে নিশ্চিত পরাজয় জেনে আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসী বাহিনীরা বরিশাল সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে যে তান্ডব চালিয়েছে তার সুষ্ঠু বিচার করতে হবে। এমনকি ভোটকেন্দ্র দখল করে হাতপাখার সমর্থক ও ভোটারদের কেন্দ্রে ঢুকতে দেয়নি । সিইসির বাটপারি মেশিন ইভিএম এর মাধ্যমে ভোট গ্রহণ বাতিল করতে হবে। নির্বাচনের সহিংসতা ও ইভিএম কারচুপির সুষ্ঠ তদন্ত করতে হবে । সন্ত্রাসবাহিনী কতটা বর্বর অসভ্য তার প্রমাণ তারা একজন সর্বজন শ্রদ্ধেয় আলেমের গায়ে হাত তুলে প্রমাণ করেছে ।আজ দেশে এই সরকারের সন্ত্রাসী বাহিনীর ভয়ে মানুষ আতঙ্কে থাকে। এমনকি তাদের ছাত্র সংগঠনের ছাত্র নেতারা ধর্ষণ টেন্ডারবাজি ইত্যাদির সাথে সম্পৃক্ত। তাদের যুব সংগঠন চাঁদাবাজি সন্ত্রাস ইত্যাদির সাথে সম্পৃক্ত থেকে এদেশের মানুষের জন মনে আতঙ্ক তৈরি করেছে। বর্তমান সময়ে এই প্রহসনের রাজনীতি,হত্যা গুম ,খুন, টেন্ডারবাজী , চাঁদাবাজির বন্ধ করতে হবে। বিনা অপরাধ আটকৃত আলেমদের মুক্তি দিতে হবে।

পীর চরমোনাই এহেন পরিস্থিতিতে ইসলাম , দেশ ও মানবতার মুক্তির জন্য আগামী জাতীয় নির্বাচন জাতীয় সরকারের অধীনে দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

আশাকরি করি সরকারের সুবুদ্ধি উদয় হবে তিনি জাতীয় সরকারের অধিনে আগামী সংসদ নির্বাচন দিবেন।

জনপ্রিয় সংবাদ

সালথায় কৃষককে কুপিয়ে হত্যায় পাঁচ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

রাজবাড়ীতে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ

আপডেট সময় ১১:৪১:২৭ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৮ জুন ২০২৩

মুফতি ফয়জুল করীমের ওপর হামলার প্রতিবাদে শুক্রবার বিকাল ৩ টায় রাজবাড়ী শহরের পৌর ইংলিশ মার্কেট ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর জেলা কার্যালয় থেকে শুরু করে বিক্ষোভ মিছিলটি শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে জেলা প্রেস ক্লাবের সামনে সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়।

বিক্ষোভ সমাবেশে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ রাজবাড়ী জেলা শাখার সভাপতি মুফতি শামসুল হুদা,জেলা সিনিয়র সহ-সভাপতি মুস্তাফিজুর রহমান,জেলা প্রশিক্ষণ সম্পাদক মাওলানা আব্দুল কাইয়ুম কাসেমী,জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক হাফেজ সাব্বির হুসাইন,যুব আন্দোলনের জেলা সভাপতি মুহাম্মাদ রফিকুল ইসলাম মিলন, শ্রমিক আন্দোলন জেলা সভাপতি মুস্তাফিজুর রহমান সেলিম প্রমুখ, ছাত্র আন্দোলনের ছাত্র নেতা মুহাম্মাদ আব্দুর রহিম সুমন বক্তব্য দেন।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, শায়খে চরমোনাই ওপর হামলাকারীদের অবিলম্বে গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আওতায় আনতে হবে। বর্তমান নির্বাচন কমিশন সরকারের রিমোট কন্ট্রোলের সহযোগিতায় চলে। সুতরাং এই নির্বাচন কমিশন কখনো সুষ্ঠ নিরপেক্ষ নির্বাচন দিতে পারবে না।তার প্রমাণ হয়েছে বরিশাল সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে। সুতরাং এই ব্যর্থ অথর্ব নির্বাচন কমিশন কে অনতিবিলম্বে পদত্যাগ করতে হবে। বরিশাল সিটি নির্বাচনে নিশ্চিত পরাজয় জেনে আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসী বাহিনীরা বরিশাল সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে যে তান্ডব চালিয়েছে তার সুষ্ঠু বিচার করতে হবে। এমনকি ভোটকেন্দ্র দখল করে হাতপাখার সমর্থক ও ভোটারদের কেন্দ্রে ঢুকতে দেয়নি । সিইসির বাটপারি মেশিন ইভিএম এর মাধ্যমে ভোট গ্রহণ বাতিল করতে হবে। নির্বাচনের সহিংসতা ও ইভিএম কারচুপির সুষ্ঠ তদন্ত করতে হবে । সন্ত্রাসবাহিনী কতটা বর্বর অসভ্য তার প্রমাণ তারা একজন সর্বজন শ্রদ্ধেয় আলেমের গায়ে হাত তুলে প্রমাণ করেছে ।আজ দেশে এই সরকারের সন্ত্রাসী বাহিনীর ভয়ে মানুষ আতঙ্কে থাকে। এমনকি তাদের ছাত্র সংগঠনের ছাত্র নেতারা ধর্ষণ টেন্ডারবাজি ইত্যাদির সাথে সম্পৃক্ত। তাদের যুব সংগঠন চাঁদাবাজি সন্ত্রাস ইত্যাদির সাথে সম্পৃক্ত থেকে এদেশের মানুষের জন মনে আতঙ্ক তৈরি করেছে। বর্তমান সময়ে এই প্রহসনের রাজনীতি,হত্যা গুম ,খুন, টেন্ডারবাজী , চাঁদাবাজির বন্ধ করতে হবে। বিনা অপরাধ আটকৃত আলেমদের মুক্তি দিতে হবে।

পীর চরমোনাই এহেন পরিস্থিতিতে ইসলাম , দেশ ও মানবতার মুক্তির জন্য আগামী জাতীয় নির্বাচন জাতীয় সরকারের অধীনে দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

আশাকরি করি সরকারের সুবুদ্ধি উদয় হবে তিনি জাতীয় সরকারের অধিনে আগামী সংসদ নির্বাচন দিবেন।