ঢাকা ০৩:২০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৩, ১৭ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীতে জমি-জমা বিরোধের জেরে ভাসুরের হাতের মারধরে গৃহবধূ হাসপাতালে

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৬:৫১:০৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ৮ জানুয়ারী ২০২৩
  • ২৫ বার পড়া হয়েছে

রাজবাড়ীতে জমি-জমার বিরোধের জেরে ভাসুরের (স্বামীর বড় ভাই) মারধরে ফরিদা বেগম (২৫) নামে এক গৃহবধূ আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। শনিবার দুপুরের দিকে ঘটনাটি ঘটে সদর উপজেলার মিজানপুর ইউনিয়নের গঙ্গাপ্রসাদপুর গ্রামে।

আহত ফরিদা বেগমকে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় ফরিদা বেগম বাদী হয়ে রাজবাড়ী থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

স্থানীয়রা জানায়, জমি-জমা নিয়ে ফরিদা বেগমের স্বামী ফরিদ খানের সঙ্গে তার বড় ভাই গোলাম গাউছ সেলিমের (৪০) বিরোধ চলে আসছিলো।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, শনিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে গোলাম গাউছ সেলিমের নেতৃত্বে আহসান হাবিব (৩৭), বাদশা (৫০), নয়ন (২২), লিমা (২৫), পারভীন (৩৫) ও হোসনে আরা আছিয়াসহ (৪২) আরও ১০-১২ জন লাঠিসোটা ও দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে ফরিদ খানের বাড়িত ঢুকে তার স্ত্রী ফরিদা বেগমকে বেধড়ক মারধর করে এবং তার আড়াই বছরের শিশু কন্যাকে ছুড়ে ফেলাসহ ঘরের আসবাবপত্র ভাঙচুর করে। পরে স্থানীয়রা ফরিদা বেগমকে অজ্ঞান অবস্থায় উদ্ধার করে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকায় ফরিদা বেগম বাদী হয়ে তার ভাই আনোয়ার হোসেনের মাধ্যমে রাজবাড়ী থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত গোলাম গাউছ সেলিম বলেন, আমি কাউকে কোনো মারধর করিনি। তবে আমি আমার ঘর উদ্ধার করার জন্য কিছু লোকজন নিয়ে যাই। আমার ঘরের মধ্যে তাদের কিছু জিনিসপত্র ছিল। সেগুলো বের করার সময় সে (ফরিদা) বাধা দেয়। এ সময় সে আঘাত পেয়ে থাকতে পারে।

রাজবাড়ী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ সাহাদাত হোসেন বলেন, জমি জমা সংক্রান্ত ঘটনায় থানায় একটি অভিযোগ হয়েছে। অভিযোগের প্রেক্ষিতে আসামী গ্রেপ্তারের প্রক্রিয়া অব্যাহত আছে।

জনপ্রিয় সংবাদ

রাজবাড়ীতে জমি-জমা বিরোধের জেরে ভাসুরের হাতের মারধরে গৃহবধূ হাসপাতালে

আপডেট সময় ০৬:৫১:০৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ৮ জানুয়ারী ২০২৩

রাজবাড়ীতে জমি-জমার বিরোধের জেরে ভাসুরের (স্বামীর বড় ভাই) মারধরে ফরিদা বেগম (২৫) নামে এক গৃহবধূ আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। শনিবার দুপুরের দিকে ঘটনাটি ঘটে সদর উপজেলার মিজানপুর ইউনিয়নের গঙ্গাপ্রসাদপুর গ্রামে।

আহত ফরিদা বেগমকে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় ফরিদা বেগম বাদী হয়ে রাজবাড়ী থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

স্থানীয়রা জানায়, জমি-জমা নিয়ে ফরিদা বেগমের স্বামী ফরিদ খানের সঙ্গে তার বড় ভাই গোলাম গাউছ সেলিমের (৪০) বিরোধ চলে আসছিলো।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, শনিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে গোলাম গাউছ সেলিমের নেতৃত্বে আহসান হাবিব (৩৭), বাদশা (৫০), নয়ন (২২), লিমা (২৫), পারভীন (৩৫) ও হোসনে আরা আছিয়াসহ (৪২) আরও ১০-১২ জন লাঠিসোটা ও দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে ফরিদ খানের বাড়িত ঢুকে তার স্ত্রী ফরিদা বেগমকে বেধড়ক মারধর করে এবং তার আড়াই বছরের শিশু কন্যাকে ছুড়ে ফেলাসহ ঘরের আসবাবপত্র ভাঙচুর করে। পরে স্থানীয়রা ফরিদা বেগমকে অজ্ঞান অবস্থায় উদ্ধার করে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকায় ফরিদা বেগম বাদী হয়ে তার ভাই আনোয়ার হোসেনের মাধ্যমে রাজবাড়ী থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত গোলাম গাউছ সেলিম বলেন, আমি কাউকে কোনো মারধর করিনি। তবে আমি আমার ঘর উদ্ধার করার জন্য কিছু লোকজন নিয়ে যাই। আমার ঘরের মধ্যে তাদের কিছু জিনিসপত্র ছিল। সেগুলো বের করার সময় সে (ফরিদা) বাধা দেয়। এ সময় সে আঘাত পেয়ে থাকতে পারে।

রাজবাড়ী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ সাহাদাত হোসেন বলেন, জমি জমা সংক্রান্ত ঘটনায় থানায় একটি অভিযোগ হয়েছে। অভিযোগের প্রেক্ষিতে আসামী গ্রেপ্তারের প্রক্রিয়া অব্যাহত আছে।