ঢাকা ০৩:৩৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৩, ১৭ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জমি সংক্রান্ত বিরোধ, পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আসামীকে পেটানোর অভিযোগ

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ১১:২৫:৪৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২৩
  • ৩৯ বার পড়া হয়েছে

সাইফুল ইসলাম, মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি, ২৪ জানুয়ারী
মানিকগঞ্জে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে মঙ্গলবার বিকেলে প্রতিপক্ষের অভিযোগের তদন্তে গিয়ে আসামীকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে সদর থানার এক পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত পুলিশ কর্মকর্তা মানিকগঞ্জ সদর থানার উপ-সহকারী পরিদর্শক মো: আলী আকবর।

জানা গেছে, মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার কৃৃষ্ণপুর ইউনিয়নের উত্তর কৃষ্ণপুর গ্রামের জবেদ আলী ও মো: মানিক সরকারের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিল। বিরোধপূর্ণ জমি মো: মানিক সরকারের দখলে থাকায় সেখানে বসতবাড়ি নির্মাণের কাজ করছিল সে। তবে সেই জমি নিজের দাবি করে বসতবাড়ি নির্মাণ কাজ স্থগিত রাখতে আইনী সহযোগিতা চেয়ে গত ৩রা জানুয়ারী মানিকগঞ্জ সদর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন প্রতিপক্ষ জবেদ আলী। অভিযোগের তদন্তকারী কর্মকর্তা মো: আলী আকবর ঘটনাস্থলে গিয়ে মো: মানিক সরকারকে নির্মাণ কাজ বন্ধ করার নির্দেশ দেন। তবে মানিক সরকার সেই জমি নিয়ে আদালতের কোন নির্দেশনা না থাকায় নির্মাণ কাজ চালিয়ে যান। এরপর জমি নিয়ে বিরোধের জেরে মারধরের অভিযোগ এনে জবেদ আলীর ঘনিষ্টদের বিরুদ্ধে গত ১৯ জানুয়ারী আদালতে সি. আর মামলা দায়ের করেন মো: মানিক সরকার। বিরোধপূর্ণ এ জমি নিয়ে মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারী) বিকেলে এএসআই মো: আলী আকবর ফের তদন্তে গিয়ে নির্মাণ কাজ চলমান দেখে ক্ষিপ্ত হয়ে মানিক সরকারকে নির্মাণ শ্রমিকদের সামনেই মারধর ও থানায় ধরে আনার হুমকি দেয়ার অভিযোগ করেন মো: মানিক সরকার।

মো: মানিক সরকার জানান, আলী আকবর দারোগা এসে আমাকে কাজ বন্ধ করার নির্দেশ দেয়। তখন আমি বলেছি এটা আমার জমি। তখন সে আমার ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে আমাকে থানায় ধরে নিয়ে যাওয়ার হুমকি দেন। আমি তার কাছে আমার অপরাধ কি জানতে চাইলে তিনি আমাকে থাপ্পড় মারতে মারতে বলেন তোর অপরাধ কি থানায় গেলেই জানতে পারবি।

এ ব্যাপারে এএসআই আলী আকবরের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি এখন কাজ করছি, এখন কিছু বলতে পারবো না। আপনার কিছু জানার থাকলে আসামীকে নিয়ে থানায় আইসেন।

এ বিষয়ে মানিকগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুর রউফ সরকার বলেন, ওই আসামী স্থানীয় চেয়ারম্যান-মেম্বার ও মুরুব্বিদের কথা অমান্য করে বিরোধপূর্ণ জমিতে বাড়ি নির্মাণ করছে। প্রতিপক্ষের অভিযোগ পেয়ে বিষয়টি তদন্ত করতে একজন পুলিশ অফিসারকে ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছে। আসামীরা অনেক সময় পুলিশের বিরুদ্ধে নানা ধরনের মিথ্যা কথা বলে, এসব কথার কোন ভিত্তি নেই। ওই আসামীকে হুমকি বা মারধর করা হয়নি।

বিষয়টি নিয়ে মানিকগঞ্জ জেলা আইনজীবি সমিতির সাবেক সহ-সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট দীলিপ কুমার রাজবংশী বলেন, বিজ্ঞ আদালতে মোকাদ্দমা চলমান থাকায় আদালতের নির্দেশ ব্যতিত পুলিশ জমিজমা সংক্রান্ত মামলায় কোন হস্তক্ষেপ করতে পারেনা। এছাড়া কোন পক্ষকে কাজ করা থেকে বিরত থাকার নির্দেশও দিতে পারেনা।

জনপ্রিয় সংবাদ

জমি সংক্রান্ত বিরোধ, পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আসামীকে পেটানোর অভিযোগ

আপডেট সময় ১১:২৫:৪৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২৩

সাইফুল ইসলাম, মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি, ২৪ জানুয়ারী
মানিকগঞ্জে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে মঙ্গলবার বিকেলে প্রতিপক্ষের অভিযোগের তদন্তে গিয়ে আসামীকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে সদর থানার এক পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত পুলিশ কর্মকর্তা মানিকগঞ্জ সদর থানার উপ-সহকারী পরিদর্শক মো: আলী আকবর।

জানা গেছে, মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার কৃৃষ্ণপুর ইউনিয়নের উত্তর কৃষ্ণপুর গ্রামের জবেদ আলী ও মো: মানিক সরকারের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিল। বিরোধপূর্ণ জমি মো: মানিক সরকারের দখলে থাকায় সেখানে বসতবাড়ি নির্মাণের কাজ করছিল সে। তবে সেই জমি নিজের দাবি করে বসতবাড়ি নির্মাণ কাজ স্থগিত রাখতে আইনী সহযোগিতা চেয়ে গত ৩রা জানুয়ারী মানিকগঞ্জ সদর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন প্রতিপক্ষ জবেদ আলী। অভিযোগের তদন্তকারী কর্মকর্তা মো: আলী আকবর ঘটনাস্থলে গিয়ে মো: মানিক সরকারকে নির্মাণ কাজ বন্ধ করার নির্দেশ দেন। তবে মানিক সরকার সেই জমি নিয়ে আদালতের কোন নির্দেশনা না থাকায় নির্মাণ কাজ চালিয়ে যান। এরপর জমি নিয়ে বিরোধের জেরে মারধরের অভিযোগ এনে জবেদ আলীর ঘনিষ্টদের বিরুদ্ধে গত ১৯ জানুয়ারী আদালতে সি. আর মামলা দায়ের করেন মো: মানিক সরকার। বিরোধপূর্ণ এ জমি নিয়ে মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারী) বিকেলে এএসআই মো: আলী আকবর ফের তদন্তে গিয়ে নির্মাণ কাজ চলমান দেখে ক্ষিপ্ত হয়ে মানিক সরকারকে নির্মাণ শ্রমিকদের সামনেই মারধর ও থানায় ধরে আনার হুমকি দেয়ার অভিযোগ করেন মো: মানিক সরকার।

মো: মানিক সরকার জানান, আলী আকবর দারোগা এসে আমাকে কাজ বন্ধ করার নির্দেশ দেয়। তখন আমি বলেছি এটা আমার জমি। তখন সে আমার ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে আমাকে থানায় ধরে নিয়ে যাওয়ার হুমকি দেন। আমি তার কাছে আমার অপরাধ কি জানতে চাইলে তিনি আমাকে থাপ্পড় মারতে মারতে বলেন তোর অপরাধ কি থানায় গেলেই জানতে পারবি।

এ ব্যাপারে এএসআই আলী আকবরের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি এখন কাজ করছি, এখন কিছু বলতে পারবো না। আপনার কিছু জানার থাকলে আসামীকে নিয়ে থানায় আইসেন।

এ বিষয়ে মানিকগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুর রউফ সরকার বলেন, ওই আসামী স্থানীয় চেয়ারম্যান-মেম্বার ও মুরুব্বিদের কথা অমান্য করে বিরোধপূর্ণ জমিতে বাড়ি নির্মাণ করছে। প্রতিপক্ষের অভিযোগ পেয়ে বিষয়টি তদন্ত করতে একজন পুলিশ অফিসারকে ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছে। আসামীরা অনেক সময় পুলিশের বিরুদ্ধে নানা ধরনের মিথ্যা কথা বলে, এসব কথার কোন ভিত্তি নেই। ওই আসামীকে হুমকি বা মারধর করা হয়নি।

বিষয়টি নিয়ে মানিকগঞ্জ জেলা আইনজীবি সমিতির সাবেক সহ-সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট দীলিপ কুমার রাজবংশী বলেন, বিজ্ঞ আদালতে মোকাদ্দমা চলমান থাকায় আদালতের নির্দেশ ব্যতিত পুলিশ জমিজমা সংক্রান্ত মামলায় কোন হস্তক্ষেপ করতে পারেনা। এছাড়া কোন পক্ষকে কাজ করা থেকে বিরত থাকার নির্দেশও দিতে পারেনা।