ঢাকা ০৪:০৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৩, ১৭ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা, ৩ বছর এলাকাছাড়া তরুণী, প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০২:৪৩:০৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ৮ জানুয়ারী ২০২৩
  • ২৭ বার পড়া হয়েছে

ঝালকাঠি প্রতিনিধিঃ- কাঠালিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমাদুল হক মনির ও তার সহযোগী ইউপি চেয়ারম্যান মিঠু সিকাদেরর বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা দায়ের করে প্রায় ৩ বছর যাবত পরিবারসহ এলাকা ছাড়া হয়েছেন এক তরুণী। রোববার (৮ জানুয়ারী) সকালে বরিশাল আদালত চত্বরে সাংবাদিকদের কাছে এমন অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী ঐ তরুণী। তিনি প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপের মাধ্যমে চেয়ারম্যান মনিরের স্ত্রীর স্বীকৃতি ও স্বাভাবিকভাবে জীবন যাপন করার আকুতি জানান ওই তরুণী।

তরুণী জানান, মামলা দেওয়ার পর থেকে প্রধান আসামি চেয়ারম্যান এমাদুল হক মনিরের অব্যাহত হুমকি এবং বাড়িতে লোক পাঠিয়ে ঘরছাড়া হতে বাধ্য করেছেন। মনির ও তার সহযোগীরা তাকে এসিড ছুড়ে ঝলসে দেয়াসহ অপহরণ করে লাশ গুম এবং বাড়ি ঘরে আগুন দেয়ার হুমকি দিচ্ছেন। এমনকি মামলার সাক্ষীদেরও হত্যাসহ নানা হুমকি-ধমকি দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন ঐ তরুণী।
আদালত সূত্রে জানা গেছে, বরিশাল বিভাগীয় নারী ও শিশু নির্যাতন অপরাধ দমন ট্রাইব্যুনালে কাঠালিয়ার উপজেলা চেয়ারম্যান মনির ও তার সহযোগী আওরাবুনিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিঠু সিকাদেরর বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন ঐ উপজেলার আমুয়া ইউনিয়নের এক তরুণী। মামলার বিচারক অভিযোগটি আমলে নিয়ে প্রথমে বরিশাল কোতোয়ালী মডেল থানা ও পরে বরিশাল পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ দেয়। পিবিআই’র তদন্ত রিপোর্টের উপর নির্ভর করে আদালত মামলাটি খারিজ করে দেয়। পরবর্তীতে বাদী আবার উচ্চ আদালতে আপিল করেলে উচ্চ আদালত সম্প্রতি মামলাটি পুনরায় তদন্ত ও আসামিদের আত্মসমর্পণের নির্দেশ দেয়। গত বুধবার (৪ জানুয়ারি) দুপুরে তারা আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করলে বিচারক মো. ইয়ারব হোসেন তাদের জামিন মঞ্জুর করেন।
মামলার বিবরণে জানা গেছে, চাকরি চাইতে গেলে ওই তরুণীকে চাকরি দেওয়ার প্রলোভনে বহুবার শারীরিক সম্পর্ক করে মনির। এরপর বিয়ের প্রলোভনও দেখানো হয়। গত তিন বছর এভাবে চলার পর ২০২০ সালের ২৫ আগস্ট মামলা করেন তিনি।
এ বিষয়ে অভিযুক্ত ঐ উপজেলা চেয়ারম্যানের কাছে জানতে চাইলে আদালতে যোগাযোগ করতে বলে ফোনটি কেটে দিন।
এইচ এম নাসির উদ্দিন আকাশ
ঝালকাঠি প্রতিনিধি।

জনপ্রিয় সংবাদ

উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা, ৩ বছর এলাকাছাড়া তরুণী, প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা

আপডেট সময় ০২:৪৩:০৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ৮ জানুয়ারী ২০২৩

ঝালকাঠি প্রতিনিধিঃ- কাঠালিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমাদুল হক মনির ও তার সহযোগী ইউপি চেয়ারম্যান মিঠু সিকাদেরর বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা দায়ের করে প্রায় ৩ বছর যাবত পরিবারসহ এলাকা ছাড়া হয়েছেন এক তরুণী। রোববার (৮ জানুয়ারী) সকালে বরিশাল আদালত চত্বরে সাংবাদিকদের কাছে এমন অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী ঐ তরুণী। তিনি প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপের মাধ্যমে চেয়ারম্যান মনিরের স্ত্রীর স্বীকৃতি ও স্বাভাবিকভাবে জীবন যাপন করার আকুতি জানান ওই তরুণী।

তরুণী জানান, মামলা দেওয়ার পর থেকে প্রধান আসামি চেয়ারম্যান এমাদুল হক মনিরের অব্যাহত হুমকি এবং বাড়িতে লোক পাঠিয়ে ঘরছাড়া হতে বাধ্য করেছেন। মনির ও তার সহযোগীরা তাকে এসিড ছুড়ে ঝলসে দেয়াসহ অপহরণ করে লাশ গুম এবং বাড়ি ঘরে আগুন দেয়ার হুমকি দিচ্ছেন। এমনকি মামলার সাক্ষীদেরও হত্যাসহ নানা হুমকি-ধমকি দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন ঐ তরুণী।
আদালত সূত্রে জানা গেছে, বরিশাল বিভাগীয় নারী ও শিশু নির্যাতন অপরাধ দমন ট্রাইব্যুনালে কাঠালিয়ার উপজেলা চেয়ারম্যান মনির ও তার সহযোগী আওরাবুনিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিঠু সিকাদেরর বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন ঐ উপজেলার আমুয়া ইউনিয়নের এক তরুণী। মামলার বিচারক অভিযোগটি আমলে নিয়ে প্রথমে বরিশাল কোতোয়ালী মডেল থানা ও পরে বরিশাল পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ দেয়। পিবিআই’র তদন্ত রিপোর্টের উপর নির্ভর করে আদালত মামলাটি খারিজ করে দেয়। পরবর্তীতে বাদী আবার উচ্চ আদালতে আপিল করেলে উচ্চ আদালত সম্প্রতি মামলাটি পুনরায় তদন্ত ও আসামিদের আত্মসমর্পণের নির্দেশ দেয়। গত বুধবার (৪ জানুয়ারি) দুপুরে তারা আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করলে বিচারক মো. ইয়ারব হোসেন তাদের জামিন মঞ্জুর করেন।
মামলার বিবরণে জানা গেছে, চাকরি চাইতে গেলে ওই তরুণীকে চাকরি দেওয়ার প্রলোভনে বহুবার শারীরিক সম্পর্ক করে মনির। এরপর বিয়ের প্রলোভনও দেখানো হয়। গত তিন বছর এভাবে চলার পর ২০২০ সালের ২৫ আগস্ট মামলা করেন তিনি।
এ বিষয়ে অভিযুক্ত ঐ উপজেলা চেয়ারম্যানের কাছে জানতে চাইলে আদালতে যোগাযোগ করতে বলে ফোনটি কেটে দিন।
এইচ এম নাসির উদ্দিন আকাশ
ঝালকাঠি প্রতিনিধি।