ঢাকা ০১:৩৯ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
এইমাত্র প্রাপ্ত ::
Logo কাতারের নিরাপত্তা ব্যবস্থাতে আমরা অভিভূত Logo ঝালকাঠির রাজাপুরে নও মুসলিম গৃহবধুর উপর হামলা Logo ঝালকাঠিতে ঘূর্ণিঝড় সিত্রাং-এ ক্ষতিগ্রস্ত বিদ্যালয়ে নতুন ভবন নির্মানের দাবিতে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন Logo অনুষ্ঠিত হলো ঢাকাস্থ রাজবাড়ী জেলা সাংবাদিক ফোরামের নির্বাহী পরিষদের প্রথম বৈঠক। Logo সালথার সোনাপুর ইউনিয়ন কৃষকলীগের আংশিক কমিটি গঠন ‘সভাপতি শাহজাহান, সম্পাদক আমির’ Logo ঝালকাঠিতে গাছ কাটাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে নারী সহ আহত ১১ Logo রুপাপাত বামন চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্ত Logo সালথায় সন্তানদের হাতে পিতা নিহত: আটক-৪ Logo প্রেমিকের সাথে অভিমানে কলেজ ছাত্রীর আত্মহত্যা Logo সহকারী নার্স মোতালেবের দাপটে অসহায় চিকিৎসক-নার্স-কর্মচারীরা
ময়লার স্তূপে বঙ্গবন্ধু-প্রধানমন্ত্রীর ছবি!

ময়লার স্তূপে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি!

মানিকগঞ্জে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি সম্বলিত সাইনবোর্ড ময়লা আবর্জনার মধ্যে ফেলে দেয়ার ঘটনা ঘটেছে। ওই সাইনবোর্ডে মানিকগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাজিদুল ইসলামের নাম থাকলেও সে ব্যাপারে তদারকি না করার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

বৃহস্পতিবার (২৭ অক্টোবর) বিকেলে জেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ের উল্টোপাশে দোকানের পেছনে অযত্নে-অবহেলায় ময়লা আবর্জনার মধ্যে পরিত্যক্ত অবস্থায় সাইনবোর্ডটি পড়ে থাকতে দেখা যায়।

জানা গেছে, গত ২৮ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষ্যে শুভেচ্ছা জানিয়ে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাজিদুল ইসলামের নামে বানানো সাইনবোর্ড প্রয়োজন শেষ হতেই ময়লা আবর্জনার মধ্যে ফেলে দেয়া হয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে সাইনবোর্ডটি সেখানে পড়ে থাকলেও সে ব্যাপারে কেউ কোন খোঁজ রাখেনি।
বিষয়টি নিয়ে মানিকগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাজিদুল ইসলামের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সাইনবোর্ডটি আমিই বানিয়েছিলাম এবং লেবার দিয়ে এমনভাবে টানানো হয়েছে যাতে কেউ সেটা নষ্ট করতে না পারে। তবে শত্রুতাবশত কেউ ইচ্ছাকৃতভাবে এটা করে থাকতে পারে। কে বা কারা এটা করেছে সে বিষয়ে খোজ নিয়ে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। ছবিটি সঠিকভাবে রাখতে আমি এখনই ব্যবস্থা নিচ্ছি।

এ নিয়ে মানিকগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এম এ সিফাদ কোরাইশী (সুমন) বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। কিছু না জেনে এ বিষয়ে কোন মন্তব্য করতে পারবো না।

এ বিষয়ে মানিকগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এ্যাডভোকেট গোলাম মহিউদ্দিন বলেন, বিষয়টি দু:খজনক। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি এভাবে ফেলে রাখা ঠিক হয়নি। প্রোগ্রাম শেষ হলেও ছবিগুলোর বিষয়ে তদারকি করা দরকার ছিল। আমি এখনই ব্যবস্থা নিচ্ছি।

স্ত্রীর হামলা থেকে রেহাই চেয়ে স্বামীর সংবাদ সম্মেলন

ময়লার স্তূপে বঙ্গবন্ধু-প্রধানমন্ত্রীর ছবি!

ময়লার স্তূপে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি!

আপডেট সময় ০২:৪৬:৪১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৮ অক্টোবর ২০২২

মানিকগঞ্জে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি সম্বলিত সাইনবোর্ড ময়লা আবর্জনার মধ্যে ফেলে দেয়ার ঘটনা ঘটেছে। ওই সাইনবোর্ডে মানিকগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাজিদুল ইসলামের নাম থাকলেও সে ব্যাপারে তদারকি না করার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

বৃহস্পতিবার (২৭ অক্টোবর) বিকেলে জেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ের উল্টোপাশে দোকানের পেছনে অযত্নে-অবহেলায় ময়লা আবর্জনার মধ্যে পরিত্যক্ত অবস্থায় সাইনবোর্ডটি পড়ে থাকতে দেখা যায়।

জানা গেছে, গত ২৮ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষ্যে শুভেচ্ছা জানিয়ে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাজিদুল ইসলামের নামে বানানো সাইনবোর্ড প্রয়োজন শেষ হতেই ময়লা আবর্জনার মধ্যে ফেলে দেয়া হয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে সাইনবোর্ডটি সেখানে পড়ে থাকলেও সে ব্যাপারে কেউ কোন খোঁজ রাখেনি।
বিষয়টি নিয়ে মানিকগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাজিদুল ইসলামের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সাইনবোর্ডটি আমিই বানিয়েছিলাম এবং লেবার দিয়ে এমনভাবে টানানো হয়েছে যাতে কেউ সেটা নষ্ট করতে না পারে। তবে শত্রুতাবশত কেউ ইচ্ছাকৃতভাবে এটা করে থাকতে পারে। কে বা কারা এটা করেছে সে বিষয়ে খোজ নিয়ে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। ছবিটি সঠিকভাবে রাখতে আমি এখনই ব্যবস্থা নিচ্ছি।

এ নিয়ে মানিকগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এম এ সিফাদ কোরাইশী (সুমন) বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। কিছু না জেনে এ বিষয়ে কোন মন্তব্য করতে পারবো না।

এ বিষয়ে মানিকগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এ্যাডভোকেট গোলাম মহিউদ্দিন বলেন, বিষয়টি দু:খজনক। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি এভাবে ফেলে রাখা ঠিক হয়নি। প্রোগ্রাম শেষ হলেও ছবিগুলোর বিষয়ে তদারকি করা দরকার ছিল। আমি এখনই ব্যবস্থা নিচ্ছি।