ঢাকা ১১:০৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
এইমাত্র প্রাপ্ত ::
Logo ঝালকাঠিতে ঘূর্ণিঝড় সিত্রাং-এ ক্ষতিগ্রস্ত বিদ্যালয়ে নতুন ভবন নির্মানের দাবিতে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন Logo অনুষ্ঠিত হলো ঢাকাস্থ রাজবাড়ী জেলা সাংবাদিক ফোরামের নির্বাহী পরিষদের প্রথম বৈঠক। Logo সালথার সোনাপুর ইউনিয়ন কৃষকলীগের আংশিক কমিটি গঠন ‘সভাপতি শাহজাহান, সম্পাদক আমির’ Logo ঝালকাঠিতে গাছ কাটাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে নারী সহ আহত ১১ Logo রুপাপাত বামন চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্ত Logo সালথায় সন্তানদের হাতে পিতা নিহত: আটক-৪ Logo প্রেমিকের সাথে অভিমানে কলেজ ছাত্রীর আত্মহত্যা Logo সহকারী নার্স মোতালেবের দাপটে অসহায় চিকিৎসক-নার্স-কর্মচারীরা Logo ৬ দিন ধরে বিভিন্ন এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ, চরম দুর্ভোগ! Logo সালথায় ইউএনও বিদায় ও নবাগতকে সংবর্ধনা
টিসিবি’র পণ্য ব্যবসায়ীর নিকট বিক্রি!

টিসিবি’র পণ্য ব্যবসায়ীর নিকট বিক্রি!

মানিকগঞ্জের ঘিওরে ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ- টিসিবি’র পণ্য নিম্ন আয়ের মানুষ না পেলেও স্বচ্ছল ব্যবসায়ীর নিকট বিক্রির অভিযোগ উঠেছে।

জানা গেছে, বুধবার (২৬ অক্টাবর) দুপুরে উপজেলার নালী ইউনিয়নের কার্ডধারী নিম্নআয়ের পরিবারের কাছে সাশ্রয়ী মূল্যে টিসিবির পণ্য বিক্রি করা হয়। কিন্তু এদিন কার্ডধারী অনেকেই পণ্য ক্রয় করেননি। ফলে ওই ইউনিয়নের সাধারণ নিম্নআয়ের অনেকে টিসিবির পণ্য নিতে আসেন। তবে তাদেরকে পণ্য না দিয়ে স্থানীয় মেম্বার ও তাদের পছন্দের লোকদের টিসিবির পণ্য দেওয়া হয়। পণ্য দেওয়া হয় অন্য উপজেলার লোকদেরকেও।

জানা যায়, মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার নবগ্রাম ইউনিয়নের বেরিরচর গ্রামের মামুন মিয়াকে টিসিবির পণ্য দেন মেম্বার হাবিবুর রহমান। মামুন মিয়া হাবিবুর রহমানের বুদ্ধিদাতা হিসেবে এলাকায় পরিচিত।

নালী ইউনিয়নের নিম্নআয়ের সাধারণ মানুষকে পন্য না দিয়ে অন্য উপজেলার স্বচ্ছল লোকের নিকট টিসিবির পন্য বিক্রি করায় স্থানীয়রা ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

ক্ষোভ প্রকাশ করে স্থানীয়রা বলেন, নালী ইউনিয়নের বাসিন্দা হয়েও আমরা টিসিবির পণ্য নিতে পারি না, অথচ অন্য উপজেলার লোক টিসিবির পণ্য নিয়ে যান।

ইউপি সদস্য হাবিবুর রহমান বলেন, মামুন মিয়ার কাছে পন্য বিক্রি করা হয়নি। তার শাশুড়ির নামে কার্ড আছে, উনি সেই মাল নিয়েছে।

এ নিয়ে নালী ইউনিয়নের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা ও ট্যাগ কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন বলেন, অনেক সময় কার্ডধারীদের অনেকেই আসে না, তখন হয়তো দুয়েকজনের কাছে বিক্রি করে। তবে অন্য ইউনিয়নের কারো কাছে বিক্রির নিয়ম নেই।

নালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল কুদ্দুস মধু বলেন, সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের নিম্নআয়ের মানুষকে না দিয়ে অন্য ইউনিয়নের কারো কাছে বিক্রি করাটা অন্যায়। এটা মোটেও ঠিক হয়নি।

এ বিষয়ে ঘিওর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হামিদুর রহমান বলেন, এরকম করার কোন সুযোগ নেই। আমরা বিষয়টি খতিয়ে দেখবো। কেউ এমন করে থাকলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জনপ্রিয় সংবাদ

ঝালকাঠিতে ঘূর্ণিঝড় সিত্রাং-এ ক্ষতিগ্রস্ত বিদ্যালয়ে নতুন ভবন নির্মানের দাবিতে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

টিসিবি’র পণ্য ব্যবসায়ীর নিকট বিক্রি!

টিসিবি’র পণ্য ব্যবসায়ীর নিকট বিক্রি!

আপডেট সময় ০৭:৫৭:২০ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৬ অক্টোবর ২০২২

মানিকগঞ্জের ঘিওরে ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ- টিসিবি’র পণ্য নিম্ন আয়ের মানুষ না পেলেও স্বচ্ছল ব্যবসায়ীর নিকট বিক্রির অভিযোগ উঠেছে।

জানা গেছে, বুধবার (২৬ অক্টাবর) দুপুরে উপজেলার নালী ইউনিয়নের কার্ডধারী নিম্নআয়ের পরিবারের কাছে সাশ্রয়ী মূল্যে টিসিবির পণ্য বিক্রি করা হয়। কিন্তু এদিন কার্ডধারী অনেকেই পণ্য ক্রয় করেননি। ফলে ওই ইউনিয়নের সাধারণ নিম্নআয়ের অনেকে টিসিবির পণ্য নিতে আসেন। তবে তাদেরকে পণ্য না দিয়ে স্থানীয় মেম্বার ও তাদের পছন্দের লোকদের টিসিবির পণ্য দেওয়া হয়। পণ্য দেওয়া হয় অন্য উপজেলার লোকদেরকেও।

জানা যায়, মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার নবগ্রাম ইউনিয়নের বেরিরচর গ্রামের মামুন মিয়াকে টিসিবির পণ্য দেন মেম্বার হাবিবুর রহমান। মামুন মিয়া হাবিবুর রহমানের বুদ্ধিদাতা হিসেবে এলাকায় পরিচিত।

নালী ইউনিয়নের নিম্নআয়ের সাধারণ মানুষকে পন্য না দিয়ে অন্য উপজেলার স্বচ্ছল লোকের নিকট টিসিবির পন্য বিক্রি করায় স্থানীয়রা ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

ক্ষোভ প্রকাশ করে স্থানীয়রা বলেন, নালী ইউনিয়নের বাসিন্দা হয়েও আমরা টিসিবির পণ্য নিতে পারি না, অথচ অন্য উপজেলার লোক টিসিবির পণ্য নিয়ে যান।

ইউপি সদস্য হাবিবুর রহমান বলেন, মামুন মিয়ার কাছে পন্য বিক্রি করা হয়নি। তার শাশুড়ির নামে কার্ড আছে, উনি সেই মাল নিয়েছে।

এ নিয়ে নালী ইউনিয়নের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা ও ট্যাগ কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন বলেন, অনেক সময় কার্ডধারীদের অনেকেই আসে না, তখন হয়তো দুয়েকজনের কাছে বিক্রি করে। তবে অন্য ইউনিয়নের কারো কাছে বিক্রির নিয়ম নেই।

নালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল কুদ্দুস মধু বলেন, সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের নিম্নআয়ের মানুষকে না দিয়ে অন্য ইউনিয়নের কারো কাছে বিক্রি করাটা অন্যায়। এটা মোটেও ঠিক হয়নি।

এ বিষয়ে ঘিওর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হামিদুর রহমান বলেন, এরকম করার কোন সুযোগ নেই। আমরা বিষয়টি খতিয়ে দেখবো। কেউ এমন করে থাকলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।