ঢাকা ০৫:২৭ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২৩, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
কাতারের বিশ্বকাপে রেফারির সাথে মাঠে থাকবেন বাংলাদেশের শিয়াকত আলী

কাতারের বিশ্বকাপে রেফারির সাথে মাঠে থাকবেন বাংলাদেশের শিয়াকত আলী

মধ্যপ্রাচ্যের দেশ কাতার বিশ্বকাপে ম্যাচ পরিচালনায় নিযুক্ত রেফারিদের কো-অর্ডিনেটর হিসেবে কাজ করবেন, কাতার ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনে সহকারী রেফারি হিসেবে কাজ করা বাংলাদেশের শিয়াকত আলী। বিগত ৯ বছর ধরে কাতারে সহকারী রেফারি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন বাংলাদেশের চট্টগ্রামের ছেলে শিয়াকত।

প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপে বাংলাদেশের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করার সুযোগ পেয়ে গর্বিত এই রেফারি। নিজের মেধা ও শ্রম দিয়ে বিশ্বকাপে সেরাটা দিয়ে বাংলাদেশের নাম উজ্জ্বল করতে চান শিয়াকত।

কাতার বিশ্বকাপে ম্যাচ পরিচালনায় নিয়োজিত থাকবেন সারা বিশ্বের ৩৬ জন রেফারি, ৬৯ জন সহকারী রেফারি ও ২৪ জন ভি’ডিও ম্যাচ অফিসিয়াল। সেই সুবাদে আগামী ২০ নভেম্বর থেকে মরুর বুকের এই ফুটবল বিশ্বকাপে মাঠের খেলায় না থেকেও যেন জড়িয়ে আছে বাংলাদেশের নাম।

২০১৩ সালে কাজের সূত্রে কাতারে পাড়ি জমান চট্টগ্রামের ছেলে শিয়াকত আলী। সেখানে বার্সেলোনার একটি রেফারি অন্বেষণ কার্যক্রমে অংশ নিয়েই কপাল খুলে যায় তার। এরপর কাতার ফুটবলে ১৬ দিনের রেফারি প্রশিক্ষণ শেষ করেন। পরে কাতারের স্পায়ার একাডেমি থেকে রেফারিং অ্যান্ড স্পোর্টস সাইকোলজিতে স্নাতক সম্পন্ন করেন। এরইমধ্যে রেফারিংয়ের ওপর সি ও ডি ডিপ্লোমা কোর্স শেষ করেছেন। কাতার ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনে কাজ করছেন সহকারী রেফারি হিসেবে।

কাতার বিশ্বকাপের মঞ্চে দক্ষিণ এশিয়া থেকে একমাত্র রেফারি কো-অর্ডিনেটর হিসেবে দায়ি’ত্ব পালনের সুযোগ পেয়ে তিনি উচ্ছ্বাসিত।

সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে শিয়াকত আলী বলেন, কাতার ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন এবং ফিফা কর্তৃপক্ষ রেফারিদের কো-অর্ডিনেটর হিসেবে ১০ জনকে নিয়োগ দিয়েছে।
এর মধ্যে দক্ষিণ এশিয়া থেকে আমি যোগ হয়েছি। বিশ্বকাপে বাংলাদেশকে প্রতিনিধিত্ব করার সুযোগ পেয়ে আমি গর্বিত। সকলের কাছে দোয়া চাই। কঠোর পরিশ্রম দিয়ে নিজেকে আরও এগিয়ে নিতে চান শিয়াকত।

ট্যাগস :

রাজবাড়ীতে ট্রেনে কাটা পড়ে দুইজনের মৃত্যু

কাতারের বিশ্বকাপে রেফারির সাথে মাঠে থাকবেন বাংলাদেশের শিয়াকত আলী

কাতারের বিশ্বকাপে রেফারির সাথে মাঠে থাকবেন বাংলাদেশের শিয়াকত আলী

আপডেট সময় ০৮:৫২:৪০ অপরাহ্ন, শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২

মধ্যপ্রাচ্যের দেশ কাতার বিশ্বকাপে ম্যাচ পরিচালনায় নিযুক্ত রেফারিদের কো-অর্ডিনেটর হিসেবে কাজ করবেন, কাতার ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনে সহকারী রেফারি হিসেবে কাজ করা বাংলাদেশের শিয়াকত আলী। বিগত ৯ বছর ধরে কাতারে সহকারী রেফারি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন বাংলাদেশের চট্টগ্রামের ছেলে শিয়াকত।

প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপে বাংলাদেশের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করার সুযোগ পেয়ে গর্বিত এই রেফারি। নিজের মেধা ও শ্রম দিয়ে বিশ্বকাপে সেরাটা দিয়ে বাংলাদেশের নাম উজ্জ্বল করতে চান শিয়াকত।

কাতার বিশ্বকাপে ম্যাচ পরিচালনায় নিয়োজিত থাকবেন সারা বিশ্বের ৩৬ জন রেফারি, ৬৯ জন সহকারী রেফারি ও ২৪ জন ভি’ডিও ম্যাচ অফিসিয়াল। সেই সুবাদে আগামী ২০ নভেম্বর থেকে মরুর বুকের এই ফুটবল বিশ্বকাপে মাঠের খেলায় না থেকেও যেন জড়িয়ে আছে বাংলাদেশের নাম।

২০১৩ সালে কাজের সূত্রে কাতারে পাড়ি জমান চট্টগ্রামের ছেলে শিয়াকত আলী। সেখানে বার্সেলোনার একটি রেফারি অন্বেষণ কার্যক্রমে অংশ নিয়েই কপাল খুলে যায় তার। এরপর কাতার ফুটবলে ১৬ দিনের রেফারি প্রশিক্ষণ শেষ করেন। পরে কাতারের স্পায়ার একাডেমি থেকে রেফারিং অ্যান্ড স্পোর্টস সাইকোলজিতে স্নাতক সম্পন্ন করেন। এরইমধ্যে রেফারিংয়ের ওপর সি ও ডি ডিপ্লোমা কোর্স শেষ করেছেন। কাতার ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনে কাজ করছেন সহকারী রেফারি হিসেবে।

কাতার বিশ্বকাপের মঞ্চে দক্ষিণ এশিয়া থেকে একমাত্র রেফারি কো-অর্ডিনেটর হিসেবে দায়ি’ত্ব পালনের সুযোগ পেয়ে তিনি উচ্ছ্বাসিত।

সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে শিয়াকত আলী বলেন, কাতার ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন এবং ফিফা কর্তৃপক্ষ রেফারিদের কো-অর্ডিনেটর হিসেবে ১০ জনকে নিয়োগ দিয়েছে।
এর মধ্যে দক্ষিণ এশিয়া থেকে আমি যোগ হয়েছি। বিশ্বকাপে বাংলাদেশকে প্রতিনিধিত্ব করার সুযোগ পেয়ে আমি গর্বিত। সকলের কাছে দোয়া চাই। কঠোর পরিশ্রম দিয়ে নিজেকে আরও এগিয়ে নিতে চান শিয়াকত।